‘শুরু থেকেই বলছি খালেদা জিয়াকে কোনো দুর্নীতির মামলায় আটক করা হয়নি। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে আটক করা হয়েছে। তাই রাজনৈতিক আন্দোলন ছাড়া তাকে মুক্ত করা সম্ভব নয়।’- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন এসব কথা বলেছেন।




আগ্রাসী শক্তির বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর শহীদ আবরার ফাহাদ এবং সকল নির্যাতনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে বাংলাদেশ নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম আয়োজিত সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।




বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশ নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের আহ্বায়ক বেগম সেলিমা রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই চন্দ্র রায়, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদিন, ডা. এ জেড এম জাহিদ, অধ্যাপক আসিফ নজরুল, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।




খন্দকার মাহবুব বলেন, দীর্ঘদিন একটি অবৈধ সরকারের অধীনে রয়েছি। আমরা ব্যর্থ হয়েছি অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে। যদি নারী নির্যাতন বলতে হয় তবে সবচেয়ে বড় নির্যাতিত নারী বেগম খালেদা জিয়া। অত্যন্ত দুঃখ হয়, কষ্ট হয় আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে আমরা ব্যর্থ হয়েছি।




তিনি বলেন, আমরা হয় মারা যাবো না হয় বেগম জিয়াকে মুক্ত করবো। আসুন আন্দোলনে নামি। বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কত লাখ মানুষ তারা কারাগারে নিবে? সাহসী নেতৃত্ব না থাকলে বেগম জিয়ার মুক্তি হবে না।




প্রবীণ এ আইনজীবী বলেন, বেগম খালেদা জিয়া মুমূর্ষু অবস্থায় রয়েছেন। যে কোনো মুহূর্তে যে কোনো কিছু হয়ে যেতে পারে এবং সরকার সেটা করতেই বদ্ধপরিকর।




তিনি বলেন, যারা আমাদের নেতা আছেন সাহস নিয়ে মাঠে নামেন। আপনারা কয়েকজন নেতা রাস্তায় নামলে লাখো জনতা আসবে। খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে কর্মীর অভাব হবে না। ইনশাল্লাহ জাতীয়তাবাদী শক্তিকে কোনো অপশক্তি দমাতে পারবে না।