বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশ বর্তমানে একটা পুলিশি রাষ্ট্র। যার কারণে আজকে সামাজিক অপরাধ বেড়েছে। সমাজের নীতি-নৈ’তিকতাহীন অবস্থা বিরাজ করছে। মা ছেলেকে ‘খুন করছে। ছেলে মাকে ‘খুন করছে।




ভাই ভাইকে ‘খুন করছে। ছেলে বাবাকে ‘খুন করছে। যারা এগুলো করছে তারা সবাই আওয়ামী লীগের মদদপুষ্ট। আওয়ামী লীগই দেশে রাজনৈতিক ‘সহিংসতা করছে। তারা জানে যে, অপরাধ করলেও তাদের ধরা পড়ার শঙ্কা নেই। ধরা পড়লেও তারা দ্রুত রেহাই পেয়ে যাবে।




জাতীয় প্রেস ক্লাবে শুক্রবার জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সাবেক সভাপতি অধ্যাপিকা রেহানা প্রধানের স্মরণসভায় মওদুদ কথা বলেন। আবু মোবাশ্বের মো. আনাসের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, জাগপা সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান প্রমুখ।




মওদুদ আহমদ বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার সংবিধানসম্মত নির্বাচিত সরকার নয়। ২৯ ডিসেম্বর সিভিলিয়ান ক্যুর মাধ্যমে এ সরকার ক্ষমতায় এসেছে।১০ বছরের যে নির্যাতন, অন্যায়, ‘অত্যাচার, নিপীড়ন, ‘দুর্নীতি-দুঃশাসন, সেটির বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে ২০১৯ সালে।




এর আগে ‘মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান হয়েছে। সে অভিযানে বহু নিরীহ মানুষকে তারা ‘হ’ত্যা করেছে। কিন্তু একজন গডফাদারকেও তারা ধরতে পারেনি।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, এরপর শুরু হল শোভন-রাব্বানীর চাঁদাবাজিকাণ্ড।




১০ বছরে এই ছাত্রলীগ ও যুবলীগ মানুষের ওপর অত্যাচার, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি করেছে।কিন্তু ১০ বছরে ছাত্রলীগ-যুবলীগের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এমন কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই যেখানে ছাত্রলীগের টর্চার সেল নেই। বুয়েটেই ১০টি টর্চার সেল রয়েছে। যার একটিতে আবরার ফাহাদকে ‘হত্যা করা হয়।




ছাত্র রাজনীতি নয়, ছাত্রলীগকে নিষিদ্ধ করতে হবে -আমান : বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান বলেছেন, বর্তমান সরকার ছাত্র রাজনীতিকে বন্ধ করে দিতে চায়। ছাত্র রাজনীতি বন্ধ নয়, ছাত্র রাজনীতিকে কলুষিত করা গুণ্ডা বাহিনীর নেতৃত্বে চলা ছাত্রলীগের রাজনীতি বন্ধ করতে হবে।




দুর্বৃত্তদের দুর্বৃত্তায়নকে বন্ধ করতে হবে। শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী চালক দল আয়োজিত মানববন্ধনে আমান এ কথা বলেন।জসিম উদ্দিন কবিরের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন নাজিম উদ্দিন আলম, মিয়া মোহাম্মদ আলম, মোহাম্মদ শাজাহান প্রমুখ।