ভারতীয় ক্রিকেটারদের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) পাওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন বাংরাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। জানা গেছে নাগপুরে আজ (৯ নভেম্বর) দুই বোর্ড প্রেসিডেন্টের সাক্ষাতের কথা রয়েছে। তার আগেই গনমাধ্যমে একথা জানালেন বিসিবি সভাপতি।




দেশের বাইরে অন্য কোনো দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলার অনুমতি পান না ভারতের ক্রিকেটাররা। তবে বেশ কয়েকবার বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট লিগ গুলোতে খেলে গেছেন ইউসুফ পাঠানের মতো ভারতীয় ক্রিকেটার। এবার বিপিএলেও তাদের নিয়ে আসতে চান বিসিবি বস নাজমুল হাসান পাপন।




আজ নাগপুরে ডিসেম্বরে শুরু হতে যাওয়া বঙ্গবন্ধু বিপিএলে ভারতীয় ক্রিকেটার নিয়ে আসার ব্যাপারে গাঙ্গুলির সঙ্গে আলোচনা করবেন পাপন। এ ব্যাপারে পাপন বলেন, ‘ওরাতো তাদের ক্রিকেটারদের বাইরে খেলতে দেয়না, তাই বিপিএলে কিছু খেলোয়াড় আনা যায় কিনা এ ব্যাপারে আলোচনা হবে। যদি আনা যায় খুব ভালো হবে আমাদের জন্য। বঙ্গবন্ধু বিপিএলে কোন কোন খেলোয়াড় আনা যায় সেটাও গুরুত্বপূর্ণ আমাদের জন্য।




বঙ্গবন্ধু বিপিএলে ভারতীয় ক্রিকেটারদের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে পাপন বলেন, ‘একটা টুর্নামেন্ট চলায় পাকিস্তানি ক্রিকেটাদের পাওয়া যাবেনা তাই ভারত, শ্রীলঙ্কার দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে। আফগানিস্তান থেকে কয়েকজন স্পিনার নিবো কিন্তু দল সাজাতে ভারতীয়দের লাগবে।




পাকিস্তান দল নিয়ে শোয়েবের ক্ষোভ
শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পরে এ বার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অজিদের হাতেও বিধ্বস্ত হতে হল পাকিস্তানকে। অথচ এই ফরম্যাটে কয়েক দিন আগেও পাকিস্তান ছিল অপ্রতিরোধ্য। সেই পাকিস্তান এখন রাস্তা ভুলে গিয়েছে।




পার্থে তিন ম্যাচের টি টোয়েন্টি সিরিজ ২-০ জিতে নিয়েছে অজিরা। চলতি বছরে শেষ ১০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটিতে জিতেছে পাকিস্তান। সরফরাজ আহমেদ নেতা থাকাকালীন পাকিস্তানের দাপট ছিল টি-টোয়েন্টিতে। বাবর আজম অধিনায়ক হওয়ার পরে পাকিস্তানের পারফরম্যান্স খারাপ হয়েছে। পাক-ক্রিকেটের বেহাল অবস্থা দেখে চিন্তিত সাবেক পাকিস্তানি পেসার শোয়েব আখতারও। তিনি কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন ক্রিকেটারদের।




ক্ষোভ প্রকাশ করে শোয়েব বলছেন, ‘পাকিস্তান ক্রিকেটের সার্বিক ছবিটা ভাল নয়। দলের ক্ষমতা কতটা সেই সম্পর্কে সম্যক ধারণা থাকতে হবে। সেই সঙ্গে দলের প্রতিভা সম্পর্কেও জ্ঞান থাকতে হবে। দল হিসেবে আমরা ঠিক কোন জায়গায় রয়েছি, তা এ বার ভালই বোঝা যাচ্ছে। বিশ্বকাপ শুরু হতে বেশি দেরি আর নেই। বিশ্বকাপের আগে ৮-৯টি টি টোয়েন্টি ম্যাচ এখনও পাবে পাকিস্তান। সেই ম্যাচগুলোর সদ্ব্যবহার করতে হবে। ক্রিকেটারদের জন্য শুভেচ্ছা রইল।