নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ‘ফুটপাত নিয়ে এক বছর আগে আমার উপর আক্রমন করা হয়েছে। আমার অনেক লোক আহত হয়েছে। তারপরও ফুটপাতে হকার বসেছে। এ নিয়ে এসপি হারুন সাহেবকে আমরা চিঠি লিখেছিলাম। তিনি নিজ উদ্যোগে এগুলো পরিস্কার রাখার চেষ্টা করেছেন। এখন তিনি চলে যাওয়ায় নারায়ণগঞ্জ যেন আবার স্বর্গরাজ্য হয়ে গেছে।





যার যার মতো সে সে পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে। সকল অবৈধ যানবাহন স্ট্যান্ড পূর্বের জায়গায় ফেরত এসেছে। এটা একটা সহজ প্রক্রিয়া একজন এসপি আসবে চলে যাবে, ডিসি আসবে চলে যাবে ও মেয়র আসবে চলে যাবে কিন্তু প্রতিষ্ঠানের কাজ তো থেমে থাকার কথা না।




তাহলে কিভাবে নারায়ণগঞ্জ শহর আবারও স্বর্গরাজ্য হয়ে গেল। সবাই খুশি হয়ে গেল কারণ আর উচ্ছেদ নাই, ফুটপাত যেভাবে আছে সেভাবে বসবে, যেভাবে ছিল সেভাবে চলবে। এএসপির দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি এগুলোর বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিন। মানুষকে নিঃশ্বাস ফেলার সুযোগ দিন।’




১১ নভেম্বর সোমবার দুপুরে সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের সম্মেলন কক্ষে এক মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেভ দ্য চিলড্রেন ও সিপিডি এর আয়োজনে ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সহযোগিতায় ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা এবং নগর দুর্যোগ সহনশীল প্রকল্প অবহিতকরণ’ মতবিনিময় ওই সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা ও সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও স্বেচ্ছাসেবক কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।




নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিও) এএফএম এহতেশামুল হকের সঞ্চালনায় উপস্থিত পুলিশ সুপারের প্রতিনিধি হিসেবে ছিলেন নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুভাষ চন্দ্র সাহা, সিটি করপোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফি উদ্দিন প্রধান, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর আফসানা আফরোজ বিভা, শারমিন হাবিব বিন্নী, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সিনিয়র স্টেশন অফিসার বেলাল হোসেন, সেভ দ্য চিলড্রেন এর ডেপুটি ডিরেক্টর (রিস্ক রিডাকশন এন্ড ক্লাইমেট চেইঞ্জ) সৈয়দ মতিউল আহসান, ডেপুটি ম্যানেজার (আরবান রেজিলিয়েন্স প্রজেক্ট) ফাতেমা মেহেরুন্নেছা, সিনিয়র অফিসার (আরবান রেজিলিয়েন্স প্রজেক্ট) মোঃ মাহফুজুর রহমান, ঢাকা সিপিডির প্রজেক্ট কো-অডিনেটর, (আরবান রেজিলিয়েন্স প্রজেক্ট) মোঃ ফজলুল হক ও সিপিডি নারায়ণগঞ্জ এর প্রজেক্ট কো-অডিনেটর, (আরবান রেজিলিয়েন্স প্রজেক্ট) কাজী এনামুল কবির প্রমুখ।




সভায় উপস্থিত পুলিশের এএসপিকে উদ্দেশ্যে করে আইভী বলেন, আপনাদের চলমান কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে। প্রতিষ্ঠান নারায়ণগঞ্জ থেকে উধাও হয়ে যায়নি। একজন ব্যক্তি পরিবর্তন হবে সেটা সরকারের সহজাত প্রক্রিয়া। ব্যক্তি পরিবর্তন হতে পারে কিন্তু প্রতিষ্ঠান না। তাই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম যেন চলমান থাকে।




দায়িত্বপ্রাপ্ত এএসপিকে উদ্দেশ্যে করে আইভী বলেন, আপনাদের চলমান কার্যক্রম যেন অব্যাহত থাকে। প্রতিষ্ঠান নারায়ণগঞ্জ থেকে উধাও হয়ে যায়নি। একজন ব্যক্তি পরিবর্তন হবে সেটা সরকারের সহজাত প্রক্রিয়া। ব্যক্তি পরিবর্তন হতে পারে কিন্তু প্রতিষ্ঠান না। তাই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম যেন চলমান থাকে।




গত ৩ নভেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদকে পুলিশ হেড কোয়াটারে বদলি করা হয়। আর গত ৭ নভেম্বর জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিদায় জানানো হয়। এরপর থেকে থেকে এসপি হারুনের কর্মকা- নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়।




পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১ নভেম্বর রাতে পারটেক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ হাশেমের ছেলে শওকত আজিজ রাসেলর স্ত্রী ফারা রাসেল ও ছেলে আনাব আজিজকে বাসা থেকে তুলে আনার অভিযোগ ওঠে এসিপ হারুন ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিমের বিরুদ্ধে। আর অভিযোগ সহ একাধিক অভিযোগের কারণে তাকে বদলি করা হয়েছে।




তবে এ বিষয়ে এসপি হারুন বিদায়ী বক্তব্যে কান্না করে বলেছেন, ‘আমি কোন ভুল করি নাই। সব তদন্তে প্রমাণ হবে। আমি নারায়ণগঞ্জের কল্যাণে কাজ করে গিয়েছি।’

আইভী আরো বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ শহরটা বাসের (পরিবহন) নগরী হয়ে উঠেছে। নারায়ণগঞ্জ শহরের সর্বত্র বাস, টেম্পু, রিকশা, অটোরিকশা, সিএনজি, কাভার্ডভ্যান এগুলোই দেখা যায়। নগর ভবন, ফায়ার সার্ভিস স্টেশন আমরা সবাই সময় জিম্মী হয়ে থাকি। রাস্তা, বাস টার্মিনাল, ট্রাক স্ট্যান্ড সিটি করপোরেশনের কিন্তু অনুমোদন দেয় বিআরটিএ। এটাই সমন্বয়হীনতা। এত দিন আমরা বলে এসেছি কিন্তু এখনও প্রশাসনও চায় সম্মিলিত ভাবে কাজ করার জন্য। এখন সবাই উপলব্দী করছে এটা আসলে কতটা প্রয়োজন যে, সম্মিলিত চেষ্টা ও সমন্বয় করে কাজ করা। কারণ দিনে