বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজে’লায় খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১৬৮ বস্তা চালসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই নেতাকে আ’টক করা হয়েছে।র‌্যা’ব-১২ বগুড়া স্পেশাল কোম্পানির সদস্যরা শনিবার মধ্যরাতে তাদের চালসহ আ’টক করেন।র‌্যা’বের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার এএসপি রওশন আলী এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আ’টক নেতারা হলেন- নন্দীগ্রাম উপজে’লার শিমলা বাজারের মৃ’ত মনসুর রহমানের ছেলে, উপজে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান আনিস ও তার সহযোগী তারাটিয়া গ্রামের মৃ’ত কাজেম উদ্দিনের ছেলে, নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আনসার আলী।

র‌্যা’ব সূত্র জানান, উপজে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান আনিস দু’বছর আগে খাদ্য অধিদফতরের ডিলার ছিলেন। তার ডিলারশিপ মি’লন সরদার নামে এক ব্যক্তির কাছে হস্তান্তর করেন। খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির বিপুল পরিমাণ চাল মজুদ করার খবর পেয়ে শনিবার রাতে আনিসুর রহমান আনিসের শিমলা বাজারের বাড়িতে অ’ভিযান চালানো হয়।

বাড়িতে ৫৮ বস্তা ও নিকটে তার টিভি-ফ্রিজের শো-রুমে ১১০ বস্তা চাল পাওয়া যায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আনিসুর রহমান আনিস জানিয়েছেন, চালগুলো ডিলার মি’লন সরদার রেখে গেছেন। চালগুলো জ’ব্দ ও আওয়ামী লীগ নেতা আনিসুর রহমান আনিসকে আ’টক করা হয়। পরে তার সহযোগী নন্দীগ্রাম সদর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আনসার আলীকেও গ্রে’ফতার করা হয়েছে।

র‌্যা’বের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার আরও জানান, আনিসুর রহমান আনিস, আনসার আলী ও ডিলার মি’লন সরদারের বি’রুদ্ধে মা’মলা হবে।এ প্রসঙ্গে নন্দীগ্রাম উপজে’লা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম জানান, তার সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমানের বাড়ি ও শোরুমে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১৬৮ বস্তা চাল পাওয়া গেছে।তিনি বলেন, দেশের এ ক্রান্তিকালে চাল চুরির সঙ্গে জ’ড়িতদের কোনো ছাড় নেই। আ’টকদের বি’রুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here